বিএনপির যুদ্ধাংদেহী মনোভাব জনগণের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় সরকার কঠোরভাবে দমন করবে: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, জনগণের মুক্তি আন্দোলনে শেখ হাসিনাকে সহ্য করতে হয়েছে অনেক জেল-জুলুম ও অত্যাচার নির্যাতন। শেখ হাসিনা অসংখ্যবার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন। কিন্তু জনগণের অকৃত্রিম ভালোবাসায় সব রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন অকুতোভয় নির্ভীক সেনানীর মতো।

[৩] তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা গণতন্ত্র চান ও সরকার হটাতে চান। তার আগে নিজেরা গণতান্ত্রিক হোন এবং রাজনীতিতে ও দলের গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন। গণতন্ত্র শুধু চাওয়ার বিষয় নয়, এটি চর্চারও বিষয়। সরকার পরিবর্তনের একমাত্র পথ নির্বাচন। আগামী নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। জনগণ যাদের নির্বাচিত করবে তারাই পরবর্তী সরকার গঠন করবে। গত একযুগ ধরে প্রাণান্ত চেষ্টা করেও কর্মীদের মাঠে নামাতে পারেনি বিএনপি। বিএনপি নেতাদের যুদ্ধের জন্য কর্মীদের ডাক দেওয়ার মধ্য দিয়ে আবারও আগুন সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির আভাস দিচ্ছেন কিনা তা এখন ভেবে দেখার বিষয়।

[৪] সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আগুন সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে জবাব দিতে জনগণ প্রস্তুত। বিএনপি মহাসচিব মাথাপিছু ঋণের বোঝা দেখেন, রাষ্ট্রের উত্তরণ ও সমৃদ্ধির কিছু দেখতে পান না। তারা দেশের অর্থনীতিকে পরনির্ভরশীল করে রেখে গিয়েছিলেন। শেখ হাসিনা সেই দুর্নামের বৃত্ত থেকে দেশকে অমিত সম্ভাবনাময় রূপ দিয়েছেন। পরিচিত করেছেন উন্নয়ন ও অর্জনের রোল মডেল হিসেবে।

[৫] তিনি বলেন, একটি রাজনৈতিক দলের নেতাদের মুখে সর্বদা মিথ্যাচার আর নেতিবাচকতা মানায় না। বিএনপি দেশের কপালে পরপর পাঁচবার দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের কলঙ্কতিলক পরিয়েছিলেন।

[৬] শুক্রবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে তার বাসভবনে এক ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *